Archive for ‘খেলাধুলা’

September 21, 2017

গ্রায়েম স্মিথ- ক্রিকেট মাঠের গ্ল্যাডিয়েটরের গল্প

মূল লেখার লিংক
গ্রায়েম স্মিথ- ক্রিকেট মাঠের গ্ল্যাডিয়েটরের গল্প!

সময়কাল জানুয়ারি ২০০৯।

সিডনীতে সিরিজের তৃতীয় টেস্টের শেষদিন, দুশো সাতান্ন রানে দক্ষিণ আফ্রিকার নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হলেন ডেল স্টেইন। অধিনায়ক গ্রায়েম স্মিথের কবজি ভেঙেছে প্রথম ইনিংসেই, ব্যাট হাতে তিনি নামবেন, এমনটা ভাবনায় ছিল না কারো। প্রথম দুই টেস্ট জিতে সিরিজ আগেই নিজেদের করে নিয়েছে প্রোটিয়ারা, শেষবেলায় কার এত দরকার পড়েছে শুধু শুধু ঝুঁকি নেয়ার! ম্যাচ শেষ হয়ে গেছে ধরে নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়েরাও তখন আনন্দে মত্ত।

read more »

Advertisements
August 25, 2017

দিয়াগো ম্যারাডোনা: জনগণের হৃদয়ে যিনি সর্বকালের সেরা

মূল লেখার লিংক

যেকোনো বিষয়ে সেরা নির্বাচন করার মূলত দুটি পদ্ধতি আছে। এর একটি হলো, সংশ্লিষ্ট বিষয়ে দক্ষ লোক দিয়ে বিচার করা; আরেকটি হলো, সাধারণ জনগণের ভোটে নির্বাচন করা। দক্ষ লোক দিয়ে নির্বাচন করাটাই নিঃসন্দেহে বেশি গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি। কিন্তু এর সাথে সাথে সাধারণ মানুষের নির্বাচনকেও অবজ্ঞা করা যায় না। সাধারণ মানুষের নির্বাচনে মূলত দুটো সমস্যা হয়। একটি হচ্ছে, তারা আবেগের আশ্রয় বেশি নেয়; আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তারা সমসাময়িকদের এগিয়ে রাখে। ফুটবলের ইতিহাসে অল্প কিছু খেলোয়াড় আছেন যারা কিনা দক্ষ বিচারক আর সাধারণ জনগণ দু’দিকের ভোটেই প্রথম দিকেই থাকেন।

এরকম একজন খেলোয়াড় হচ্ছেন দিয়াগো ম্যারাডোনা। গত শতাব্দীর সেরা খেলোয়াড় নির্বাচন করার সময় ফিফা প্রথমে সিদ্ধান্ত নেয়, ইন্টারনেটে ভোটিংয়ের মাধ্যমে সেরা নির্বাচন করা হবে। সেভাবে ভোটিংও হয়। তবে ফলাফল দেখে ফিফা কমিটি চোখে সর্ষে ফুল দেখে। ম্যারাডোনা ভোট পান ৫৩.৬%, পক্ষান্তরে পেলে পান মাত্র ১৮.৫৩%।

এরপরই ফিফা আরেকটি কমিটি গঠন করে, যেখানে ভোট গ্রহণ করা হয় তাদের অফিশিয়াল ওয়েবসাইট ও ম্যাগাজিনের পাঠক আর জুরি বোর্ডের সদস্যদের কাছ থেকে। এই নির্বাচনে পেলে প্রথম হন। শেষ পর্যন্ত গত শতাব্দীর সেরা খেলোয়াড়ের দুটো পুরষ্কার দেওয়া হয়; একটি জনগনের সেরা, আরেকটি বিশেষজ্ঞদের সেরা। অনলাইনের ভোটিং আসলে গ্রহণযোগ্যতা হারায় তখন, যখন দেখা যায় ম্যারাডোনা-পেলের পরের ক্রমগুলো হচ্ছে ইউসেবিও, ব্যাজিও, রোমারিও, ভ্যান বাস্তেন, রোনালদো লিমা। ক্রুয়েফ আছেন ১৩ নম্বরে, ডি স্টেফানো ১৪ নম্বরে, প্লাতিনি ১৫ নম্বরে। যে জায়গার ফলাফল আপনাকে দেখাবে ক্রুয়েফ, ডি স্টেফানো কিংবা প্লাতিনির চেয়ে ব্যাজিও কিংবা রোমারিও (তখন পর্যন্ত তারা ক্যারিয়ার শেষ করেননি) ভালো, সেই ভোট গ্রহণ করা আসলে কষ্টকর। এছাড়া অনলাইনে সাধারণত নতুন প্রজন্মের মানুষরাই ভোট দিয়েছিল। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, শতাব্দীর সেরা নির্বাচন করার মতো এত বড় বিষয়ে এই দিকগুলো ফিফা কমিটি আগে খেয়াল করল না কেন, কেন নির্বাচনটি প্রশ্নবিদ্ধ হলো। যদি অনলাইনের বিচারেও পেলে সেরা হতো, তখন কি আরেকটি নির্বাচন করা হতো?


সবচেয়ে বড় বিতর্কের দুই পাত্র

read more »

August 23, 2017

গ্যারফিল্ড সোবার্স: ক্রিকেটের রাজাধিরাজ

মূল লেখার লিংক

কিছু কিছু রেকর্ড আছে যেগুলো কিনা আপনি শুধুমাত্র ছুঁতে পারবেন, কখনো ভাঙতে পারবেন না। ছয় বলের ওভারে ৩৬ রান করা এমনই একটি রেকর্ড। এক ওভারে যদি সবগুলো বৈধ বল হয়, তাহলে আপনি কখনোই ৩৬ রানের বেশি নিতে পারবেন না। তবে ৩৬ রান নেওয়াটাও কিন্তু এত সহজ বিষয় নয়। টানা ছয়টি ছয় মারতে হবে!

ক্রিকেটে এই কাজটি করা যে খুব কঠিন, সেটি একটু ইতিহাস ঘাঁটলেই বোঝা যায়। স্বীকৃত ক্রিকেটে এই ঘটনাটি ঘটেছে মাত্র চার বার। তবে যে কোনো কাজ যিনি প্রথম বার করেন, তিনি পথপ্রদর্শক হিসেবেই বিবেচিত হন। ১৯৬৮ সালের ৩১ শে আগস্ট প্রথমবার এই কাজটি করে পথপ্রদর্শক হিসেবে রয়ে গিয়েছেন স্যার গ্যারফিল্ড সোবার্স। টানা ছয় বলে ওভার বাউন্ডারি মারার শেষ বলটি সম্পর্কে স্লিপে দাঁড়ানো পিটার ওয়াকার বলেছিলেন, “ওটা ৬ নয়, ১২”। পরবর্তীতে সেই হারিয়ে যাওয়া বলটি একটা বাগান থেকে উদ্ধার করে ১১ বছর বয়সী রিচার্ড লুইস।


ব্যাটসম্যান সোবার্স

read more »

August 20, 2017

‘ছোটলোকের বাচ্চা’, তোমাকে শ্রদ্ধা

মূল লেখার লিংক

মাইকেলের মেঘনাদবধে রাম নয়, নায়ক ছিলেন রাক্ষস রাবণ। ভালো-মন্দ বিলেতি হলেই চলে এমন মনোভাবের দত্তকুলোদ্ভব মধুসূদন ক্রিকেট খেলতেন কিনা জানি না, তবে ক্রিকেটের মহাকাব্য লিখলে নিশ্চিত তার নায়ক হতেন ক্রিকেট ইতিহাসের চরম ঘৃনিত, নিন্দিত এক ক্রিকেটার। যাকে দানব, রাক্ষস, খুনি এসবের পাশাপাশি, বোলিং রানআপে দৌড়ানোর সময় অন্তত চল্লিশ হাজার দর্শক তারস্বরে গালি দিয়েছে, “বেজন্মা, বেজন্মা, বেজন্মা” বলে, আর সেটি উপেক্ষা করে গতির ঝড় তুলছেন তিনি।

read more »

July 5, 2017

একজন কিংবদন্তী, খলনায়ক ও তার ট্র্যাজেডির গল্প

মূল লেখার লিংক
একজন কিংবদন্তী, খলনায়ক ও তার ট্র্যাজেডির গল্প
মাঝ আকাশে সুতো কেটে যাওয়া ঘুড়ির মতো গোত্তা খাচ্ছে কার্গো বিমানটা। মেঘেরও অনেকটা ওপরে তার অবস্থান, দুই পাইলট আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন কন্ট্রোল প্যানেলটাকে নিজেদের কন্ট্রোলে নিয়ে আসার। কথা শুনছে না হুইল দুটো, রেডিওটা অসাড়, কাজ করছে না রিসিভার। এয়ারপোর্টের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন, ফুরিয়ে আসছে জ্বালানীও।

read more »

June 10, 2017

কুখ্যাত বডিলাইন সিরিজ এবং এক হতভাগ্য লারউডের গল্প

মূল লেখার লিংক
ক্রিকেটকে জেন্টলম্যান স্পোর্টস হিসেবে বলা হয়ে থাকে। কিন্তু সেই স্পিরিটকে ধুলিস্যাৎ করে দিয়েছিল বডিলাইন সিরিজ। ক্রিকেটের ইতিহাসে যাকে কালো অধ্যায় হিসেবে অভিহিত করা হয়। ১৯৩২- ৩৩ সালে অষ্ট্রেলিয়ার মাটিতে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার অনুষ্ঠিত অ্যাশেজ সিরিজ ‘বডিলাইন সিরিজ’ হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করে। আর ইংলিশ বোলার লারউড ছিলেন সেই সিরিজের কলঙ্কিত এক নাম। কী হয়েছিল সেই সিরিজে? কেনই বা একে বডিলাইন সিরিজ বলা হচ্ছে? লারউড, আসলেই কি দোষী? নাকি সে ছিল ক্রিকেট রাজনীতির শিকার? তেমনি এক অনুসন্ধানের চেষ্টা আজকের এই লেখায়।

read more »

April 10, 2017

মোহাম্মদ আশরাফুল: একটি তারার নিভে যাওয়ার গল্প

মূল লেখার লিংক

বনশ্রীর নিজ বাড়িতে আশরাফুল;  ছবিসূত্রঃ espncricinfo.com

অ্যাশ, লিটল মাস্টার কিংবা বাংলাদেশের ‘আশার ফুল’, তিনি মোহাম্মদ আশরাফুল। বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা তাকে কতটা ভালবাসে তা লিখে প্রকাশ করা দুঃসাধ্য। কিন্তু মানুষের এই অপরিমেয় ভালবাসার প্রতিদান নিজের ক্যারিয়ারে প্রতিফলিত করতে পারেননি আশরাফুল। রূপকথার মতোই যিনি ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন, শেষটা করেছিলেন নামের সাথে বড্ড অবিচার করে। ১২ বছরের লম্বা আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার তার অতটাও রঙিন নয়। টেস্টে তার গড় ২৩, একদিনের ক্রিকেটে মাত্র ২২।

read more »

March 22, 2017

পৃথিবী বিখ্যাত ক্রিকেটারদের ‘ক্রিকেটামৃত’

মূল লেখার লিংক
ব্যাটসম্যান, বোলার এবং ক্রিকেট-সংশ্লিষ্ট কতজন যে ক্রিকেট নিয়ে কত মজার মজার কথা বলেছেন তার ইয়ত্তা নেই। স্লেজিং, কাউকে হেয় অপদস্থ করা যে কত উইট দিয়ে করা যায় তা দেখিয়েছেন তারা। তেমনি কিছু ক্রিকেটামৃত–

cricket-post2

read more »

March 22, 2017

ক্ষনজন্মা এক পাখি কিংবা প্রজাপতির গল্প

মূল লেখার লিংক

বাবা পাড় মাতাল, সারাদিন আকন্ঠ মদে নিমজ্জিত থাকতেন, কে জানে সেই কারনেই কিনা জন্মেই সমস্যা ছিল পায়ে। এক পা অন্য পায়ের চেয়ে ছয় সেন্টিমিটার ছোট! সাথে বা পায়ের পাতা বাকানো। কিন্তু বিধাতা যার পায়ে যাদু ঢেলে দিবেন বলে ঠিক করেছেন তাকে আটকানোর সাধ্য আছে কি এসব বাধার? না তাকে পায়ের প্রতিবন্ধকতা আটকাতে পারেনি, আটকে গিয়েছিলেন নিজের স্বেচ্ছাচারিতার কাছেই। সে গল্প পরে হবে। আসুন এখন তার যাদুর শুরুটা কোথায় তা দেখি।

read more »

March 8, 2017

শুভ জন্মদিন কিং রিচার্ডস!

মূল লেখার লিংক

১.
ক্রিকেটে ব্যাটসম্যানদের স্ট্রাইক রেট বলতে আমরা কি বুঝি? বল প্রতি কত রান করেছে তার একটা হিসেব। কোন ব্যাটসম্যানের স্ট্রাইক রেট ১০০ এর অর্থ হচ্ছে সেই ব্যাটসম্যান ১০০ বল খেলে ১০০ রান করেছেন। ব্যাটসম্যানদের গড় বলতে আমরা কি বুঝি? একজন ব্যাটসম্যান প্রতি ইনিংসে কত রান করেছেন তার একটা হিসেব।

read more »

February 27, 2017

প্রকৃতি যখন ক্রিকেটারদের নানান সুরে ডাকে

মূল লেখার লিংক
অ্যালান বোর্ডার বেজায় চটেছেন। সামান্য পেটের পীড়ায় একজন সেট ব্যাটসম্যান দলকে বিপদে ফেলে উইকেট ছেড়ে চলে যাবেন!

বোর্ডার নিজে ছিলেন দারুণ লড়াকু। উত্তরসূরি একজনের এহেন পলায়নপর আচরণে ভদ্রলোক ভীষণ ক্ষুব্ধ। সাবেক অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্পষ্ট বলে দিলেন, ‘আশা করি সে অর্ধমৃত অবস্থায় টেবিলে শুয়ে আছে। নইলে অধিনায়ক হিসেবে আমি অন্তত খুব খুশি হব না।’

বোর্ডারকে কে বোঝাবে, অবস্থা ছিল আরও শোচনীয়! মাঠে ছিলেন বলেই বরং তখন অর্ধমৃত ম্যাট রেনশ। টেবিলে শুয়ে নয়, ড্রেসিং রুমে ফিরে ছোট ঘরে গিয়েই বরং ফিরে পেয়েছেন জীবন!
1
ঘটনা ভারত-অস্ট্রেলিয়া পুনে টেস্টের প্রথম দিনের। ডেভিড ওয়ার্নার তখন সবে আউট হয়েছেন। কিন্তু অস্থির হয়ে উঠেছেন আরেক ব্যাটসম্যান রেনশ। একবার আম্পায়ারের কাছে যান, আবার ছোটেন নতুন ক্রিজে আসা অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের কাছে। উদভ্রান্তের মত একটু এদিক-সেদিক ঘোরেন। তার পর ড্রেসিং রুমের দিকে ছুট!

read more »

February 23, 2017

টেস্টে টাই—অবিশ্বাস্য ঘটনার সাক্ষী ভারত-অস্ট্রেলিয়া

মূল লেখার লিংক
এই সেই মুহূর্ত, সেই আলোচিত আম্পায়ার! ফাইল ছবি
এই সেই মুহূর্ত, সেই আলোচিত আম্পায়ার! ফাইল ছবি
৪৫ বছরের ক্যারিয়ারে কতবারই তো তর্জনী তুলেছেন ভি বিক্রমরাজু। কতবারই তো শরীরটা টান টান করে ঋজু ওই ভঙ্গিতে ব্যাটসম্যানকে ড্রেসিংরুমের পথটা দেখিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু ক্যারিয়ারের মাঝপথে দেওয়া একটা সিদ্ধান্তই ইতিহাসে নাম উঠে গেল তাঁর।

read more »

February 19, 2017

একটি বিশ্বকাপ, একজন পেলে এবং দুই ভাইয়ের চূড়ান্ত দ্বন্দ্বের ইতিহাস

মূল লেখার লিংক
ভাগ হয়ে গেলো এককালে দুই সহোদর অ্যাডলফ ও রুডলফ ড্যাজলারের হাত ধরে যাত্রা শুরু করা জুতা তৈরির প্রতিষ্ঠান Gebrüder Dassler Schuhfabrik, বিভক্ত হয়ে গেলো প্রতিষ্ঠানের কর্মীরাও। আশ্চর্যজনক ব্যাপার হলো- প্রাতিষ্ঠানিক এ বিভক্তি চূড়ান্ত বিভেদ টেনে ছিলো তাদের দুই পরিবারের সদস্য ছাড়া অন্যান্যদের মাঝেও।

Gebrüder Dassler Schuhfabrik
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন বোন মেরি চেয়েছিলেন তার দুই ছেলেও যাতে ভাইদের এ কোম্পানিতে চাকরি করে। তবে সেই প্রস্তাব আমলে নেন নি রুডলফ। পরিবারের সদস্যদের মাঝে আর কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঝামেলার সূত্রপাত এড়াতেই এমন সিদ্ধান্ত নেন তিনি। ফলে মেরির দুই ছেলে যুদ্ধে চলে যায়। এরপর আর কখনোই ফিরে আসে নি তারা। এজন্য তিনি কোনোদিনই রুডলফকে ক্ষমা করতে পারেন নি। তাই তিনি থাকতে শুরু করেন অ্যাডলফের পরিবারের সাথে। ওদিকে তাদের বাবা মারা গিয়েছিলো আগেই। বড় ছেলের প্রতি আলাদা টান ছিলো মা পলিনার। তাই আমৃত্যু তিনি তাদের সাথেই কাটিয়ে দেন।

read more »

February 19, 2017

অ্যাডলফ বনাম রুডলফঃ ঐতিহাসিক যে দ্বন্দ্বে জন্ম নিয়েছিলো বিখ্যাত অ্যাডিডাস ও পুমা

মূল লেখার লিংক
আজ থেকে প্রায় এক শতাব্দী আগেকার কথা। জার্মানির বাভারিয়া প্রদেশের হার্জোগেনোরাখ শহরে তখন বাস করতেন এক দম্পতি। স্বামী ক্রিস্টোফ ভন উইলহেল্ম ড্যাজলার কাজ করতেন একটি জুতার কোম্পানিতে, আর স্ত্রী পলিনা স্পিত্তুলার ছিলো ছোট একটি লন্ড্রির দোকান। ক্রিস্টোফ ও পলিনার সেই ঘর আলো করে এসেছিলো চার সন্তান। স্বামী-স্ত্রীর আয় খুব বেশি না হলেও ফ্রিৎজ, রুডলফ, অ্যাডলফ ও মেরিকে নিয়ে সুখেই কেটে যাচ্ছিলো তাদের দিনগুলো। এদের মাঝে মেরি তার মায়ের সাথে লন্ড্রিতেই কাজ করতো। আর তিন ভাই মিলে সেই কাপড়গুলো এরপর বিতরণের কাজ সারতো। এজন্য প্রতিবেশীরা তাদেরকে ‘দ্য লন্ড্রি বয়েজ’ নামেই চিনতো। চার ভাই-বোনের মাঝে রুডলফ ড্যাজলার ও অ্যাডলফ ড্যাজলারের নাম দুটো মনে রাখুন। কারণ আমাদের আজকের কাহিনী এ দু ভাইকে নিয়েই।

read more »

February 16, 2017

অ্যাশেজঃ টেস্ট ক্রিকেটে উদ্দীপনার অন্য নাম

মূল লেখার লিংক
‘ক্রিকেটপ্রেমী বাংলাদেশ’ বলে একটা কথা আছে। আর সময়ের অববাহিকায় এই প্রেম যেন বেড়েই চলেছে দিন কে দিন। টেস্ট খেলার হাত ধরে ক্রিকেট খেলার শুরু হলেও ধীরে ধীরে ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি ম্যাচের উদ্ভাবন। আজ চার-ছক্কার দৌড়ে পাঁচদিন ধৈর্য ধরে খেলা দেখার আগ্রহ কিছুটা স্তিমিত হয়ে গেছে ঠিকই, কিন্তু ক্রিকেটের আভিজাত্যের ছাপ এখনও সেই টেস্টেই, তা যে কোনো ক্রিকেট অনুরাগীর কাছেই সত্য।

বর্তমানে খুব কম সংখ্যক টেস্ট খেলা হতে দেখা যায়। ইদানীং যতগুলো টেস্ট ম্যাচ হয় তার মধ্যে ‘অ্যাশেজ’ সিরিজ অনেক বেশি মহার্ঘ্যপূর্ণ। সেই অনেক বছর আগে থেকে শুরু হয়ে এখনও পর্যন্ত বেশ দাপটের সাথে চলে আসছে এই সিরিজ।মাঝে মাঝে অবাক হতে হয় এর গোড়াপত্তনের ইতিহাস সম্পর্কে জানলে। কীভাবে শুরু হলো এই সিরিজ? কেনই বা এ ধরনের নামকরণ করা হলো এই সিরিজের? অনেকের কাছে হয়তো বিষয়টি জানা। কিন্তু যাদের কাছে অজানা, তাদেরকে জানানোর প্রয়াসে আজকের লেখা।

ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার অ্যাশেজ সিরিজের ট্রফি

read more »