ছবিব্লগঃ রায়মাটাং এর ডায়েরী

মূল লেখার লিংক
IMG_8869

একদিকে খরস্রোতা রায়মাটাং নদী। অন্যদিকে ভুটান পাহাড়ের হাতছানি। ছবির মত সাজানো একটা পাহাড়ী গ্রাম। নদীর নামেই গ্রামের নাম। রায়মাটাং। পূর্বতন জলপাইগুড়ি (এখন নবগঠিত আলিপুর জেলার অন্তর্গত) জেলার কালচিনি ব্লকের এই প্রান্তিক গ্রামে আপনাকে স্বাগত।

আমার বাড়ী থেকে সব মিলিয়ে ঘণ্টা চারেকের পথ। অতএব উঠল বাই তো রায়মাটাং যাই। প্রথমে বাসে কালচিনি। সেখান থেকে গাড়ী ভাড়া করে রায়মাটাং। চা বাগানের বুক চিরে সরু রাস্তা। শ্রমিক বস্তি। এস এস বি ক্যাম্প। একটু এগোলেই রায়মাটাং নদী। সেটা পেরোলে তবে রায়মাটাং গ্রাম। মাঝ নদীতে হঠাৎ বিপত্তি। নদীর স্রোতে আটকে গেছে গাড়ীর চাকা। প্রথম গীয়ার প্রবল গর্জনে জানিয়ে দিল লাভ নেই বাবা, আমাকে রেহাই দাও। আশে পাশে কেউ নেই। কোন সকালে চারটে খেয়ে বেরিয়েছি। পেটেও আগুন। সবাই নেমে ঠেলা শুরু করলাম। লাভ হল না। দূর থকে ইঞ্জিনের শব্দ পেলাম। ট্রাক। পাথর তুলতে আসছে নদী থেকে। সেই ট্রাকে দড়ি বেধে আমাদের গাড়ির পেছনে দড়ি বেঁধে উদ্ধার হল।
IMAG2318

এবারে ড্রাইভার গোঁ ধরল সে আর যাবে না। জল বাড়ছে নদীতে। ফিরতি পথে কী হবে? আমরা ভাবলাম হক কথা। অতএব মালপত্র পিঠে বেধে সোজা হাটা লাগালাম। পথে পেয়ে গেলাম সেই গ্রামের এক সওয়ারী কে। তার পিছু পিছু চলা শুরু করলাম।

এক বন্ধু ফোনে বলে দিয়েছিল কাজী সাহেব কে। উনি হোম স্টে চালান রায়মাটাং এ। মানে নিজের বাড়ির দোতলায় দুটো ঘরে পর্যটকদের থাকার ব্যাবস্থা। যা বলবেন, রেঁধে খাওয়াবে। একটা বাড়ী বাড়ী ব্যাপার। হোটেলের মত সেলাম ঠুকবে না কিন্তু নিজের রান্নাঘর থেকে নিজের হাতে বানানো গাওয়া ঘী টা, আচারটা আপনার পাতে চুলে দেবে।

এই হল রায়মাটাং। ছোট্ট পাহাড়ী গ্রাম। ভীষন চুপচাপ। বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের অন্তর্গত সংরক্ষিত বনাঞ্চলের লাগোয়া। একটু দূরেই ভূটান। সারি সারি কাঠের বাড়ি গোটা গ্রাম জুড়ে। বেশ সাজানো গোছানো। গ্রামের লোকেরা চাষবাস করেন আর কেউ কেউ হোম ষ্টে চালান। টুকটাক পশুপালন তো আছেই। গরুটা, মুরগীটা। দুধ টা, ডিমটা। তাও হাতির হামলায় ফসল নষ্ট হয় প্রায়শই। অনেকে শষ্যবীমা করান। ক্ষতিপূরণও জুটে যায়।
IMG_8724

IMG_8814

IMG_8693

তো রায়মাটাং পৌঁছে সোজা কাজি সাবেবের কাঠের দোতলার একখানা ঘরের বিছানায় নিজেকে সমর্পন করলাম। একটু জিরিয়ে স্নান টান সেরে খাওয়ার ডাক পরল। ডিমের ঝোল ভাত যেন অমৃত।
IMG_8686

বেলা থাকতে থাকতে ভাবলাম একটু ঘুরে দেখি আশপাশটা। জঙ্গল ঘন হচ্ছে। আসলে বনের একটা হাতছানি হাতছানি ব্যাপার আছে। শুধু মনে হয়, ঐ বড় গাছটা অব্ধি যাব, ব্যাস। তারপর মনে হয়, এইত্তো আর একটু। এভাবেই ভেতরে ঢুকে গেছি অনেকটা। বুনো আওয়াজ, বাঁদরের লাফঝাপে ভয় পেলাম। বেশ জলদি পা চালিয়ে ফিরে এলাম। ফেরার পথে দেখি একজন আমাদের খুজতে বেড়িয়েছে। ভেবেছে কোর এরিয়ার ঢুকে গেছি।
IMG_8782

রাতে খাওয়া দাওয়ার পর দেখি দূর থেকে লোকজনের চিৎকার আর পটকার আওয়াজ। ভয় পেয়ে গেলাম। কাজি সাহেব জিগেস করলেন, হাতি দেখবেন? তাহলে চুপটি করে দাঁড়ান বারান্দায়। এ তো রোজকারের ব্যাপার। ভূট্টার লোভে জঙ্গল থেকে বেরিয়ে হস্তিকূল হানা দেবে লোকালয়ে। ব্যাস ফাটাও পটকা। আর ভাগাও হাতি। আগের দিন পূর্নিমা গেছে। চারদিক পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে চাঁদের আলোয়। হাতির চিৎকার শোনা যাচ্ছে দূর থেকে। একটু পরে দেখি সব চুপচাপ। মানুষের সাথে পারা একটু চাপের।
IMG_8811
সকাল সকাল সকাল হল। অন্যদিন খুব তাড়া না থাকলে একটু দেরী করেই হয়। আজ তো তাড়া ছিল না। তাহলে? চা বিস্কুট খেয়ে একটু টহলদারি করলাম। এবাড়ী ও বাড়ী। বাচ্চারা পড়ছে। সকাল আটটায় দিনের একমাত্র যান টি ছাড়ে রায়মাকটাং থেকে। স্কুল কলেজ পড়ুয়া দু চারজন, ব্যাবসায়ী, অনেকদিন পর বাড়ির বাড়ী যাওয়া বধূ – সবাই খুব ব্যাস্ত। আমরাই শুধু গলায় ক্যামেরা ঝুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছি।
IMG_8836

IMG_8835

IMG_8839

কাজি সাহেব বললেন, যাবেন নাকি জঙ্গলে? আমরা একটু ভয় পেলাম। গতকালের স্মৃতি সুখকর নয়। কাজী সাহেব একটু হেসে বললেন, আরে ভয় নেই। আমার বাবা সাথে যাবেন খুকড়ী নিয়ে। গাইড যখন পেয়ে গেলাম, তখন আর কি?

গতকাল যে দিকে গেছিলাম, সে দিকে নয়। আজ আন্য দিকে। প্রথমে বেশ ফাঁকা ফাঁকা। যত এগোচ্ছি, তত ঘন হচ্ছে জঙ্গল। নাম না জানা পোকারা ডেকেই চলেছে অবিরত। দূর থেকে জলের শব্দ পাচ্ছি। ছোট নদী। জল প্রায় নেই। নদী পেরোলেই বক্সা।
IMG_8843
কাজি সাহেব একটা গাড়ি ঠিক করে দিয়েছেন। কালচিনি ড্রপ করে দিয়ে আসবে। লুচি আলুর দম সাঁটিয়ে বাক্স প্যাটরা বেঁধে কাজি সাহেবে টা টা করে চড়ে বসলাম গাড়ীতে। রায়মাটাঙ্গের বুকে থামলাম একটু। দু একটা ক্লিকবাজি আর মনে মনে রায়মাটাং কে টা টা বলা।
IMAG2319

Advertisements

লেখাটির ব্যাপারে আপনার মন্তব্য এখানে জানাতে পারেন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: