কেন কিনবেন বই যখন ফ্রী পাচ্ছেন?

অনলাইনে প্রথম ই-বুক ফেয়ারের কথা খেয়াল আছে কি আপনার? গত ২০০৬ সালের জুলাই চার তারিখ থেকে শুরু করে এক মাসব্যাপী চলেছিল এই অনন্য ও ব্যতিক্রমধর্মী অনলাইন বই মেলা। কম্পিউটারে সংগ্রহ করা, পড়া ও ব্যবহার করা যায় এমন বইকে বলা হয় ই-বুক। প্রজেক্ট গুটেনবার্গ এবং ওয়ার্ল্ড ই-বুক লাইব্রেরির সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রায় তিন লরেও বেশী ই-বুক সেখানে প্রদর্শিত হয়। এর সবগুলোই ছিল পাঠকদের জন্য একদম ফৃ।

ই-বুকের পোকা যারা তাদের জন্য ঐ মেলাটিই শেষ সুযোগ ছিল এমনটি ভাবার কোন কারণ নেই। সত্যিই, এই যুগেও যদি আপনি বই কেনার পোকা হয়ে থাকেন তবে আপনার অবশ্যই বোঝা উচিত অনলাইনে ফ্রী শব্দটি ফ্রীডম বা স্বাধীনতার ব্যাপক মতাকেই স্মরণ করিয়ে দেয়। এক দশক ধরে হয়তো আপনি সংগ্রহ করেছেন প্রায় হাজার খানেক বই ও ম্যাগাজিন। আর মাত্র দুই সপ্তাহে কেবল ই-বুক সংগ্রহ করতে শুরু করার পর দেখা গেল আপনার বইয়ের সংগ্রহশালার সংখ্যা অতিক্রম করে গেছে অনেকখানি, গুণতে গিয়ে হয়তো দুই-তিন হাজার হওয়ার পর বই গোনাগুনির কাজটা আপনি থামিয়ে দেবেন।

প্রায় বছর তিনেক আগেকার কথা যখন আমি ইন্টারনেটের ফ্রী বইয়ের নদীতে ডুব মেরে তুলে আনতাম পছন্দের এবং মজার অনেক ই-বুক আর ভরাতাম আমার হার্ডডিস্ক। আজকে সত্যিই অবাক হই যখন দেখি অনেকেই এটা সম্পর্কে জানেননা এবং এবং কষ্ট পাই যখন কেউ কেউ ভাবেন এই ফ্রী বইগুলো (কিম্বা ই-বুকগুলো) নামকরা লেখকদের বই নয়। আসলে আপনি জেনে বেশ আশ্চর্য্যই হবেন হয়তো যে অনেক নামকরা লেখকদের বিখ্যাত সব সাহিত্য কর্মই আজকাল সাইবার জগতে ফ্রী বিকোচ্ছে। নাম করতে গেলে এসব লেখকদের মধ্যে রয়েছেন সেক্সপীয়ার, কাফকা, ডিকেন্স, দস্তয়ভস্কি, জেমস জয়েস, মার্ক টোয়েন, জ্যক লন্ডন, ও হেনরী আর লেখিকাদের মধ্যে রয়েছেন জেন অস্টেন, এমিলি ডিকসন, জর্জ ইলিয়ট, এ্যনি ব্রন্টি, শার্লট ব্রনটি, অগাথা কৃস্টি, ভার্জিনিয়া উলফ এমনি আরো অনেকই। এমনকি ইচ্ছে করলেই আপনি সংগ্রহ করতে পারেন কুরআন, মহাভারত, রামায়ণ থেকে শুরু করে হোমারের ইলিয়াড এবং ওডিসি, পঞ্চতন্ত্র কিম্বা ঈশপের গল্পগুচ্ছ, প্লেটোর দর্শন কিম্বা বাৎসায়নের কামসূত্র।

তাই পছন্দের বইগুলো আজ থেকেই কালেকশন করা শুরু করুন। ডাউনলোড করা ফাইলগুলো অনেক সময় জিপ করা থাকতে পারে, সেক্ষেত্রে আনজিপ করে নিতে ভুলবেননা। অনলাইন থেকে পাওয়া বইগুলো সাধারনত টেক্সট, এইচটিএমএল এবং পিডিএফ ফরমেটে পাওয়া যায়। টেক্সট ফাইল দেখার জন্য নোটপ্যাড অথবা ওয়ার্ড প্যাড ব্যবহৃত হয় যা উইন্ডোজের সব অপারেটিং সিস্টেমেই ইন্সটল করা থাকে। কিন্তু পিডিএফ ফরমেটের বই পড়তে হলে অবশ্যই আপনার কম্পিউটারে অ্যাডবি রিডার বা অ্যক্রোবেট রিডার ইন্সটল করা থাকতে হবে। আপনার সফটওয়্যার কালেকশনে এটা থাকার কথা। না থাকলে ইন্টারনেট থেকে ফ্রী ডাউনলোড করে নিতে পারেন অ্যডবি রীডার বা অ্যক্রোবেট রীডার এর যেকোন একটি ভারশন। অ্যডবি রীডার ফ্রী- ডাউনলোড করতে ব্রাউজ করুন http://www.download.com এর Software সেকশান।

আপনার কম্পিউটারে ই-বুকের সংগ্রহশালা আপনি দু’ভাবে তৈরী করতে পারেন। প্রথমত বিভিন্ন সার্চইঞ্জিন (যেমন গুগল) দিয়ে সার্চ করে। অথবা এই ব্লগে দেয়া ওয়েবসাইট গুলোর অ্যাড্রেস ব্যবহার করতে পারেন। আর এক্ষেত্রে শুরুতেই ঢুঁ মারুন – http://www.gutenberg.org এর সাইটে।

প্রজেক্ট গুটেনবার্গের প্রতিষ্ঠাতা মাইকেল হার্ট বলেছেন তারা আশা করছেন ২০০৯ সালের মাসব্যপী ই-বই মেলায় এক মিলিয়ন বই প্রদর্শিত করতে পারবেন। গুটেনবার্গকে বলা যায় ফ্রী বইয়ের দাদু। ২৫টিরও বেশী ভাষায় প্রায় ১৯,০০০ বই এই সাইট থেকে পাবেন আপনি। এর মধ্যে রয়েছে ওয়ার্ল্ড ফেমাস ফিকশন, ছোটদের গল্প, ছড়া ও উপন্যাস, ছোট ও বড় গল্পের সংকলন, ধর্মীয় বই, রাজনীতি, সমাজ ও অর্থণীতির বই, বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও গবেষণামূলক বই, বিভিনড়ব ধরণের রেফারেন্স, এনসাইকোপেডিয়া এবং ডিকশনারী। এই সাইটটির মূল বৈশিষ্ট্য হলো এর বিন্যাস বেশ সাদামাটা। স্বেচ্ছাকর্মী ও বিভিন্ন উৎস থেকে প্রাপ্ত ডোনেশনের সাহায্যেই চলে এই অলাভজনক প্রতিষ্ঠানটি। প্রজেক্টের স্বেচ্ছাকর্মীরা কপিরাইট উঠে যাওয়া বইগুলোকে টুকে নিয়ে রুপান্তরিত করে ই-টেক্সেটে। ভলান্টিয়ারদের সাহায্যের উপর ভিত্তি করেই আগামী ২০১৫ সাল নাগাদ প্রায় এক মিলিয়ন ফ্রী বই পাঠকেদের জন্য তৈরী করতে পারবে বলে আশা করছে গুটেনবার্গ। প্রতিমাসে এই চমৎকার সাইটটি থেকে দুই মিলিয়নেরও বেশী বই ডাউনলোড করা হয়। আপনিও হতে পারেন তাদেরই একজন।

——-

Click This Link
এই ইলেকট্রনিক টেক্সট সেন্টারটি মূলত ইউনিভার্সিটি অব ভার্জিনিয়া লাইব্রেরীর। পাঠকদের জন্য আইনগত ভাবে বাধাহীন বইগুলো খুব সহজেই পাওয়া যাবে এখান থেকে। ইংরেজি সাহিত্যের উপর পড়াশুনা করছেন এবং বিশদভাবে ভাবে পড়তে আগ্রহী তাদের বেশ কাজে দেবে সাইটটি। এই সাইটির বিভিন্ন ক্যাটেগরিতে আপনি পাবেন ইংরেজি সাহিত্যের হাজার হাজার রিসোর্স। ইরেজি নাটক, কবিতা, প্রবন্ধ, ফিকশন ডাটাবেজ ছাড়াও এতে রয়েছে শেক্সপীয়ারের রচনাবলী, অক্সফোর্ডের ডিকশনারী, বাইবেল, আফ্রিকান-আমেরিকান সাহিত্য এবং দর্শনের উপর লেখা অনেক বই যার সংখ্যা প্রায় সত্তর হাজারের মত।
——-

http://www.planetpdf.com
প্যানেটপিডিএফ এর হোমপেজ থেকে কিক করুন এর ফ্রী ই-বুক সেকশনে। এই চমৎকার সাইটটিতে এডগার অ্যলান পো, লিও তলস্তয়ের ওয়ার এন্ড পীস, এমিলি ব্রনটির ওয়েদারিং হাইটস, থমাস মুরের ইউটোপিয়া, চার্লস ডিকেন্সের গ্রেট এক্সপেক্টেশন্স, জুল ভার্নের অ্যারাউন্ড দা ওয়ার্ল্ড ইন এইটটি ডেজ, ফিওদর দস্তয়ভস্কির ক্রাইম অ্যান্ড পানিশমেন্ট, জেমস জয়েসের ইউলিসিস ছাড়াও ছোটদের জন্য ঈশপের গল্প, হ্যন্স কৃশ্চিয়ান এন্ডারসনের রূপকথা, রবার্ট লুই স্টিভেনসনের ট্রেজার আইল্যন্ড, স্যার আর্থার কোনান ডয়েলের দা লস্ট ওয়ার্ল্ড সহ এমন অসংখ্য বিখ্যাত কাসিক পাবেন। এই সাইটটির বৈশিষ্ট্য হলো এখানকার সব বই-ই পিডিএফ ফরমেটের। ফলে পড়তে ও সংগ্রহ করতে পারবেন অনায়াসেই।
——-

http://www.bibliomania.com
বাইব্লিওম্যানিয়ায় রয়েছে রিড, স্টাডি, রিসার্চ, শপ এবং সার্চ সেকশন। এখানকার রিড সেকশন থেকে খুব সহজেই আপনি আপনার পছন্দের লেখকের বিভিনড়ব আর্টিকেল, নাটক, ফিকশন, ছোট গল্প কিম্বা কাবিতা সংগ্রহ করতে পারবেন। এই সাইটি থেকে অবশ্য পুরো বই একাবারে ডাউনলোড করতে পারবেননা। বেশীরভাগ বই বিভিন্ন চ্যপ্টারে ভাগ করা আছে। সেই চ্যপ্টার অনুযায়ী পেজ সেভ করতে হবে আপনাকে সংগ্রহের জন্য। ওয়ার্ল্ড ফেমাস লেখকদেও কমবেশী সব লেখাই পাবেন এই চমৎকার সাইটিতে।
——-

http://www.bartleby.com
বেশ প্রশংসিত এবং সাহিত্যের ছাত্র, লেখক, সাংবাদিক এবং এজাতীয় যে কারো জন্য মাস্ট ভিজিট সাইট যেখানে পাবেন বিভিন্ন ইংলিশ রেফারেন্স বুক, এনসাইকোপিডিয়া, ডিকশনারী ছাড়াও সাহিত্যের বিশাল সম্ভার। রেফারেন্স হিসাবে অনলাইনে পড়ার কথা বললেও এর পাশপাশি ফৃ বইও পাওয়া যাচ্ছে এখান থেকে।
——-

http://www.free-ebooks.net/
এই সাইটটিকে আধুনিক এবং ততটা বিখ্যাত নয় এমন লেখকদের প্লাটফর্ম বলা যেতে পারে। এখানে বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে লেখকরা তাদের কাজগুলোকে তুলে ধরেন পাঠকদের সামনে। চমৎকার এবং মজার কিছু লেখা এখান থেকে সহজেই পেয়ে যাবেন আপনি। নিয়মিত ক্যটাগরী ছাড়াও এখানে আপনি পাবেন খেলাধুলা, স্ব্যাস্থ্য, ট্রাভেলিং, ইতিহাস, ফ্যাশন, কম্পিউটার ও ইন্টারনেট, বিজ্ঞান ইত্যাদি বিষয়ের উপর চমৎকার কিছু বই।
——-

Click This Link
এদের দাবী অনুযায়ী প্রায় আড়াই হাজারের মতো ফৃ বই পাবেন আপনি এখানে।
——-

http://www.ebook.com.au/freebooks.htm
এই সাইটিতে ফ্রী ই-বুক পাবার অনেক লিংক প্রদর্শিত হয়েছে। এই বইগুলো ফৃ কারণ এগুলোর স্বত্ত পাঠকদের কাছে চলে গেছে নয়তো অথবা কপিরাইট মালিকানাহীন লেখা কিম্বা কপিরাইটহীন অথবা লেখক অনেক আগে মারা গেছেন। আর এর অর্থ হলে বইগুলো যত ইচ্ছা বিলানো সম্ভব। এমনকি এগুলোর পৃন্ট আউট নিতে ও পড়তেও পারবে।
——-

http://www.manybooks.net
এই সাইটটিতে পাবেন ১৬ হাজারেরও বেশী ই-বুক, সবই ফ্রী। মোস্ট পপুলার, রিকমেন্ডেশন্স অথবা ভিজিটরদের রিসেন্ট রিভিউ লিংক থেকে ব্রাউজ করতে পারেন। এর স্পেশাল কালেকশন্স থেকেও ঘুরে আসুন, আপনার জন্য মাজার কিছু বই পেয়ে যেতেও পারেন।
——-

http://www.web-books.com/
ফিকশন ও ননফিকশন এই দুই সেকশনে ভাগ করা। ফিকশন বিভাগে আছে হরর, রহস্য, রোমান্স, সাইন্সফিকশন, ফ্যন্টাসি, নাটক, ছোট গল্প ইত্যাদি। ননফিকশনাল আইটেম বায়োগ্রাফি, ইতিহাস, ভাষা, দর্শন, কবিতা, ধর্ম, বিজ্ঞান ইত্যাদি বিষয়।
——-

http://www.baen.com/library/titles.htm
বেন ফৃ লাইব্রেরী সম্প্রতি অনেকগুলো বই ছেড়েছে ইলেকট্রনিক ফরমেটে। কোন শর্ত বা দায় ছাড়াই যে কেউ এখান থেকে ইচ্ছে মত পড়তে পারবে তাদের পছন্দের বই।
——-

শেষ কথা
শেষ করার আগে একটি কথা, দীর্ঘ সময় নিয়ে সংগ্রহ করা বইগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সম্ভব হলে আপনার কালেকশনের একটি ব্যাকআপ রাখুন। সিডিতে রাইট করে রাখাটাই সবচেয়ে সুবিধাজনক। একটা সিডিতে ইচ্ছে করলে অনায়াসেই হাজারখানেক বই আঁটাতে পারবেন। তো এরপর কাসিক কোন বই পড়ার শখ হলে হুট করেই বুক স্টোরে ঢুকে যাবেননা যেন। খেয়াল রাখবেন, যে বইটা আপনি খুঁজছেন তা হযতো স্রেফ কয়েকটা মাউস কিকের ব্যাবধানেই রয়েছে। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। উপভোগ করুন অনলাইনে ফ্রী বইয়ের আনন্দময় ভুবন।

http://www.somewhereinblog.net/blog/leoblog/28801851#c6691054

লেখাটির ব্যাপারে আপনার মন্তব্য এখানে জানাতে পারেন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: