বিশাল হাড়ির দেশ

পৃথিবীর অন্যতম দানবীয় স্থাপনার মধ্যে লাওসের Plain of Jars অন্যতম। লাওসের জিয়াংখোয়াং প্লেটের যে দিকে তাকানো যায় সেদিকেই দেখা যায় বিক্ষিপ্ত ছড়িয়ে আছে বিশাল বিশাল সিরামিকের হাতলবিহীন হাড়ি(Urn)। এপর্যন্ত প্রায় হাজারখানেক হাড়ির খোজ পাওয়া যায়। এইসব হাড়ির ব্যবহার নিয়ে অনেক জল্পনা রয়েছে,কেউ বলে পানি আর খাদ্যের মজুদের জন্য,কেউ বলে পিপড়া হতে খাদ্যকে নিরাপদ রাখার জন্য।



এশিয়ার লৌহযুগের সময়কালীন অন্যতম এই স্থাপনাগুলির বয়স প্রায় ৫০০ বিসিই থেকে ৫০০ সিই নির্ধারন করা হয়েছে। ১৯৩০ সালের শুরুর দিকে সৎকার কার্যে ব্যাবহার হত বলে জানা যায়। পরবর্তীতে বিভিন্ন জারের ভিতর মানুষের হাড় দেখে নিশ্চিত হয়েছে এইগুলি সৎকারের জন্যই ব্যাবহার হত।

প্রকৃতপক্ষে এ অঞ্চলে প্রায় ৯০ টি কবরস্থান আর প্রতিটি কবর স্থানে ১ থেকে ৪০০ টি এই বিশাল জারের অবস্থান। জারের ডায়ামিটার ১-৩ মিটার। বেশিরভাগ জার স্যান্ডস্টোনের,তবে গ্রানাইট আর লাইমস্টোনেরও পাওয়া গিয়েছে।

এই জারগুলি নিয়ে এখানে যেসব লোকগাথা প্রচলিত-
১.এই অঞ্চলে দৈত্যরা বাস করত,তাদের খাদ্যসংরক্ষনে এইসব হাড়ি ব্যাবহার হত।
২.প্রাচীন রাজা খুন চেয়াং যুদ্ধ জয়ের পর বিজয় উতসবের জন্য এই সব পাত্রে একধরনের চালের মদ রাখত।

এই জারগুলি ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ডহেরিটেজের অন্তর্ভুক্ত।

আবার এই সব পাত্রে লৌহযুগে লোহা গলানোর কথাও শুনা যায়। ল্যান্ডমাইন জনিত বিপদজনক স্থান হওয়ায় ৯০ টি সাইটের মাত্র ৩ টি সাইট সবার জন্য উম্মুক্ত করা হয়েছে।

http://www.amarblog.com/posts/127829

Advertisements

লেখাটির ব্যাপারে আপনার মন্তব্য এখানে জানাতে পারেন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: