মহানুভব এক তুর্কি সুলতানের কথা

benqt60_1267611772_12-20836-496-747.jpg

অটোমান সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ। (১৪৪৭-১৫১২) বিশ্বের ইতিহাসে ইনি একজন মহানুভব এক তুর্কি সুলতান হিসেবে পরিচিত ; পূর্ব-পশ্চিমের মধ্যে ঘনিষ্ট সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য জীবনভর সচেষ্ট ছিলেন । এ ছাড়াও নিজস্ব উদ্যেগে যেসব মানবিক পদক্ষেপ নিয়েছেন -সেজন্য ইতিহাস চিরদিন অমর হয়ে থাকবেন এই মহৎ হৃদয়ের মানুষটি …

মধ্য এশিয়ার তুর্কিরা ছিল বর্তমান তুরস্কের তুর্কিজাতির পূর্বপুরুষ ; তুর্কিরা মধ্যএশিয়া থেকে মঙ্গোলদের তাড়া খেয়ে আনাতোলিয়া এসেছিল। (বর্তমান তুরস্কর আরেক নামই আনাতোলিয়া।) আনাতেলিয়ায় তুর্কিরা গড়ে তুলেছিল অটোমান সাম্রাজ্য, যে সাম্রাজ্য ত্রয়োদশ শতক থেকে প্রায় ৬০০ বছর বিশাল এক ভূখন্ড শাসন করেছিল । আনাতোলিয়ার ওগহুয তুর্কিদের কাঈই গ্রোত্রের গাজী এরতুগরুল (১১৯১/১২৮১খ্রিস্টাবাদ) অটোমান সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন; যদিও তাঁর ছেলে প্রথম ওসমান থেকে সাম্রাজ্যের নাম অটোমান বা ওসমানিয়। ১২৯৯ খ্রিষ্টাব্দে আনাতোলিয়ার মাটিতে প্রথম ওসমান অটোমান সাম্রাজ্যের ভিতটি প্রতিষ্ঠা করেন।

benqt60_1267611801_13-ottoman-empire-1580.gif

মানচিত্রে অটোমান সাম্রাজ্য।

benqt60_1267611739_11-map_thrace_roman.jpg

মানচিত্রে থ্রাস।

থ্রাস জায়গাটি গ্রিসের উত্তর পুবে। সেখানেই এক প্রাসাদে ১৪৪৭ খ্রিষ্টাব্দের ৩ ডিসেম্বর সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ-এর জন্ম; মায়ের নাম আমিনা গুলবাহার। গুলবাহার খাতুন নামেও তিনি পরিচিত ছিলেন। সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ-এর পিতার নাম ২য় মোহম্মদ । সুলতান ২য় মোহম্মদও পূর্ব-পশ্চিমের সংস্কৃতির মেল বন্ধন ঘটাতে জীবনভর সচেষ্ট ছিলেন। সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ-এর স্ত্রী ছিলেন একজন ধর্মান্তরিত গ্রিক; নাম: এইসে হাতুন; ইনি ১ম সেলিম-এর মা। সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ এর মৃত্যুর পর ১ম সেলিম অটোমান সাম্রাজ্যের সুলতান হয়েছিলেন।

benqt60_1267611680_10-istanbul_map_copy.jpg

ইস্তানবুল

benqt60_1267611622_9-istanbul10.jpg

ইস্তানবুলে তোপকাপি প্রাসাদ । তুর্কিরা ১৪৫৩ খ্রিস্টাব্দে পূর্ব রোমান সাম্রাজ্যের রাজধানী কনস্ট্যানটিনোপল জয় করে নেয়; এরপর তারা শহরটির নতুন নাম দেয় ইস্তানবুল। ইস্তানবুল ই হয়ে ওঠে অটোমান সাম্রাজ্যের কেন্দ্র। ইস্তানবুলে তোপকাপি প্রাসাদে বাস করতেন অটেমান সুলতানগন ।

benqt60_1267611577_8-Topkapi_Palace_Harem.jpg

তোপকাপি প্রাসাদ অভ্যন্তরে।

অটোমান সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ এর রাজত্বকালে (১৪৮১-১৫১২ খ্রিস্টাব্দ ) অত্যন্ত বিস্ময়কর ও মানবিক একটি ঘটনা ঘটেছিল। ওই ব্যতিক্রমী ঘটনাটি অটোমান সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ কে ইতিহাসে স্মরণীয় করে রেখেছে। সেই মানবিক ঘটনাটি উপলব্ধি করতে হলে আমাদের চোখ মধ্যপ্রাচে ইহুদি ইতিহাস ও ইউরোপের ইতিহাসের পূর্বাপর ঘটনাক্রমে ফেরাতে হবে …

benqt60_1267611955_14-history_of_the_jews_johnson.jpg

আমরা জানি, মুসা নবীর নেতৃত্বে ইহুদিরা মিশর থেকে পালিয়ে এসে জেরুজালেমে বসবাস করছিল। জেরুজালেম কালক্রমে পারস্যের অধীন চলে যায়। ৬৩ খ্রিস্টপূর্বে রোমান নগরটিট সাম্রাজ্যের অধীনে চলে যায়। ইহুদিরা প্রথম থেকেই রোমান শাসনের বিরুদ্ধে অত্যন্ত বিরূপ ছিল; তারা রোমান শাসন-শোষনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করছিল। ৭০ খ্রিস্টাব্দে রোমানরা ইহুদিদের ওপর ক্রদ্ধ হয়ে জেরুজালেম ও এর প্রধান উপাসনালয়টি সম্পূর্নরুপে ধ্বংস করে দেয়। রোমানরা এরপর বেশির ভাগ ইহুদিকে রোমে নির্বাসিত করে। ব্যাবিলনে ইহুদিদের একটি কমিউনিটি থাকায় ইহুদিদের একটি দল ওখানে চলে যায়; বিপুল সংখ্যক ইহুদি দলে দলে উত্তর আফ্রিকা ও স্পেনের উদ্দেশেও পাড়ি জমায়।

benqt60_1267611531_7-20templej.jpg

শিল্পীর তুলিতে ৭০ খ্রিস্টাব্দে রোমান সৈন্যদের জেরুজালেম ধ্বংসযজ্ঞ।

নির্বাসিত ইহুদিরা স্পেনে বসতি স্থাপন করে। স্পেনকে হিব্রু ভাষায় বলা হয়; ‘সেফারাড’; কালক্রমে স্পেনের নির্বাসিত ইহুদিরা সেফারাড নামে পরিচিত হয়ে ওঠে।
স্পেনের নির্বাসিত ইহুদিরা কেমন ছিল?
রোমানরা ৪৭৬ খ্রিস্টাব্দ অবধি স্পেন শাসন করেছিল। কাজেই ৪৭৬ খ্রিস্টাব্দ অবধি ইহুদিরা মোটেও স্বস্তিতে ছিল না। এরপর ভিসিগথরা (জার্মানিক ট্রাইব) স্পেন শাসন করে। এদের দুঃশাসনেও ইহুদি-জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছিল।

benqt60_1267611988_15-612zt1orhl_sl500_aa240_.jpg

অবশ্য সপ্তম শতকে স্পেনের ইহুদিদের সামাজিক ও রাজনৈতিক অবস্থান বদলে যায়।
কেন?
স্পেন সেসময় আরবদের অধীনে চলে যায়। Bertrand Russell তাঁর সুবিখ্যাত A HISTORY OF WESTERN PHILOSOPHY গ্রন্থে লিখেছেন: The Hegira, with which the Mohammedan era begins, took place in A.D. 622; Mahomet died ten years later. Immediately after his death the Arab conquests began, and they proceeded with extraordinary rapidity. In the East, Syria was invaded in 634, and completely subdued within two years. In 637 Persia was invaded; in 650 its conquest was completed. India was invaded in 664; Constantinople was besieged in 669 (and again in 716-17). The westward movement was not quite so sudden. Egypt was conquered by 642, Carthage not till 697. Spain, except for a small corner in the north-west, was acquired in 711-12. (পৃষ্ঠা,৪২৫)

benqt60_1267611499_6-Sefarad.jpg

স্পেনের সেফারাড ইহুদি বসতি

স্পেনের মুসলিম শাসকদের উদার দৃষ্টিভঙ্গি ইহুদিদের জন্য হয়ে উঠেছিল কল্যাণকর। ওই সময়টাকে অনেকেই বলছেন ইহুদি ইতিহাসের স্বর্ণযুগ। এ প্রসঙ্গে জনৈক ইউরোপীয় ইতিহাসবিদ লিখেছেন, ‌’In the Iberian Peninsula , (আইবেরিয় উপদ্বীপ; স্পেন যার অর্ন্তগত)
, under Muslim rule, Jews were able to make great advances in mathematics, astronomy, philosophy, chemistry and philology. This era is sometimes referred to as the Golden age of Jewish culture in the Iberian Peninsula… Jews enjoyed great privileges, and their communities prospered. There was no legislation or social barriers preventing them from conducting commercial activities. Many Jews migrated to areas newly conquered by Muslims and established communities there. The vizier of Baghdad entrusted his capital with Jewish bankers. The Jews were put in charge of certain parts of maritime and slave trade. Siraf, the principal port of the caliphate in the 10th century CE, had a Jewish governor.’

benqt60_1267611268_5-51289116mm1.jpg

আল আন্দালুস। আব্বাসীয় মুসলিমরা স্পেনকে বলত আল আন্দালুস। বিভিন্ন ধর্মের মধ্যে সৌহার্দ ও ভ্রাতৃত বিরাজমান ছিল মুসলিম স্পেনে।

এসব কারণেই স্পেনের মুসলিম শাসন ইহুদিদের স্বর্ণযুগ বলে বিবেচিত। অ্যাঞ্জেলা জি উড তাঁর হলোকাষ্ট বইতে লিখেছেন: ‘ The Hebrew word for Spain is Sefarad and Sephardic Jews are those who originated in Spain or Portugal. When under Islamic rule, there were good relations between Jews and Muslims, but under Catholic rule, there was great pressure for Jews to convert. In 1492, both Jews and Muslims were expelled from Spain, and Jews fled to Muslim countries and the Netherlands.(পৃষ্ঠা (১২)

ইতিহাসের গতি বদলায়। স্পেনের মুসলিম শাসনের অবসানের লক্ষে ইউরোপের খ্রিষ্টান রাজ্যগুলির তৎপরতা অব্যাহত ছিল। একে বলে ‘রিকনকুয়েস্তা’ বা পুর্নবিজয়; ৮০০ বছর ধরে চলেছিল ‘রিকনকুয়েস্তা’ । ১৪৯২ খ্রিষ্টাব্দে স্পেনের রানী ইসাবেলার উদ্যেগে ক্রিস্টোফার কলম্বাসের নতুন বিশ্বে আগমন ঘটেছিল। ঐ একই বছরেই জারীকৃত আলহামরা ডিক্রির মাধ্যমে স্পেনের ইহুদিদের বলা হল হয় ক্যাথলিকবাদে কনর্ভাট হও নতুবা স্পেনিশ ইনকুইজেশনের মুখোমুখি দাঁড়াও। এই একই অজুহাতে স্পেনের আরব মুসলিমদেরও উৎখাত করা হয়েছিল। স্পেনিশ ইনকুইজেশন বড় ভয়ংকর বিষয়। ধর্মের নামে জঘন্য নির্যাতন মানবেতিহাসের এক কলঙ্কজনক অধ্যায়।

benqt60_1267611225_4-T978459A.jpg
স্পেনিশ ইনকুইজেশনের নির্যাতন

স্পেনের মর্মান্তিক ইহুদি নির্যাতনের সংবাদ অটোমান সাম্রাজ্যে পৌঁছল। মহানুভব সুলতান
সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ ক্রোধে উন্মুক্ত হয়ে উঠলেন। এ কী ধরনের কথা! আমার রাজত্বেও তো কত কত জাতি বাস করে, বলকানে খ্রিস্টানেরা বাস করে-কই, কেউ কখনও শুনেছে তাদের ওপর নীপিড়ণ চলছে! উদারপ্রাণ সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ স্পেনের মর্মান্তিক ইহুদিদের কী করে বাঁচানো যায় তাইই ভাবলেন।

benqt60_1267611174_3-goke_1495_the_flagship_of_kemal_reis.jpg

সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ আমলের জাহাজ

১৪৯২ খ্রিস্টাব্দ। সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ অটোমান নৌবাহিনীকে নির্দেশ দিলেন স্পেন অভিমুখে যাত্রা করতে। সেই নৌঅভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন কেমাল রেইস। তাঁর সুযোগ্য নেতৃত্বে বহুসংখ্যক আরব ও ইহুদির প্রাণ রক্ষা পায় । সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ স্বয়ং নৌবন্দরে উপস্থিত থেকে নির্বাসিতদের স্বাগত জানান। শুধু তাই নয়, ওই মহানুভব তুর্কি সুলতান অটোমান সাম্রাজ্যে এই মর্মে নির্দেশ জারী করলেন, ‘উদ্বাস্তুদিগকে স্বাগতম জানাইতে হইবে।’ শুধু তাই নয়,তিনি নির্বাসিতদের অটোমান সাম্রাজ্যে বসবাসের অনুমতি দিলেন, নাগরিকত্বও দিলেন। ইউরোপীয় গর্ভনরদের ফরমান পাঠালেন: ইহুদিদের উৎখাত করা চলবে না ; বরং স্বাগত জানাতে হবে। যারা ইহুদিদের সঙ্গে নিষ্ঠুর ব্যবহার করবে বা ইহুদিদের অটোমান সাম্রাজ্যে প্রবেশ করতে দেবে না তাদের জন্য রয়েছে মৃত্যুদন্ডসহ ভয়াবহ শাস্তি …
এই মানবিক ঘটনা আজও শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করা হয়। অ্যাঞ্জেলা জি. উড তাঁর হলোকাষ্ট বইতে অটোমান সম্রাট দ্বিতীয় বায়োজিদ ছবি ছাপিয়ে তার পাশে লিখেছেন: ‘… A warm welcome … In 1492, news reached the Ottoman (Turkish) Empire that Jews were banished from Spain. Sultan Beyazit II, shown here, granted Jews safe haven in his empire and personally greeted them at the port. Most Jews settled and flourished in the European parts of the empire. Many of the sultans’ doctors were Jewish, and it was Jews who set up the first printing presses.’
নির্বাসিত ইহুদিদের আশ্রয় দিয়ে অটোমান সাম্রাজ্যের লাভ হয়েছিল। এ প্রসঙ্গে জনৈক ইতিহাসবিদ লিখেছেন:‘ নতুন নতুন ধ্যানধারণা, পদ্ধতি ও কারিগরী দক্ষতার কারণে স্পেনের আরব ও ইহুদিরা অটোমান সাম্রাজ্যের বিকাশে সহায়ক হয়েছিল। ১৪৯৩ সালে সেফারাড ইহুদিরা ইন্তানবুলে প্রথম ছাপাখানাটি স্থাপন করে । এরও আগে ১৪৮৩ সালে ইস্তানবুলে ইহুদিদের ছাপাখানা ছিল। এর তিন বছর আগে জার্মানিতে গুটেনবার্গ যন্ত্রটি আবিস্কার করেন। সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ এর শাসনামলে ইহুদিদের অসামান্য সাংস্কৃতিক অগ্রগতি হয়।’

benqt60_1267611119_2-beyazit01b.jpg

ইস্তানবুলে সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ-এর নামে মসজিদ

সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ অত্যন্ত রসিক ছিলেন। ইহুদিদের নির্বাসিত করার সময়ে স্পেন শাসন করতেন ২য় ফার্দিন্দানন্দ অভ আরাগন এবং ১ম ইসাবেলা। সুলতান দ্বিতীয় বায়োজিদ নাকি একবার হাসতে হাসতে দরবারে বলেছিলেন, ‘কী আজব! লোকে নাকি স্পেনের ফার্দিন্দানন্দ আর ইসাবেলাকে জ্ঞানী বলে। এই কথা শুনে হাসব না কাঁদব। তারা নিজেদের দেশকে নিঃস্ব করে আমাকে ধনী বানিয়ে দিল!’

benqt60_1267611073_1-1260471178vijita_121009_380px.jpg
ইস্তানবুলে লাদিনোভাষী ইহুদিরা। আজও ইস্তানবুলে ইহুদিরা বাস করে। এরা যে ভাষায় কথা বলে তার নাম লাদিনো। এরা নিশ্চয়ই নিয়মিত মহানুভব সেই তুর্কি সুলতানের কথা স্মরণ করে।

লেখাটির ব্যাপারে আপনার মন্তব্য এখানে জানাতে পারেন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: